Breaking News
Home / Education / মেডিকেলে চান্স পেয়েও ঢাবিতে ভর্তি, স্নাতকে হলেন প্রথম

মেডিকেলে চান্স পেয়েও ঢাবিতে ভর্তি, স্নাতকে হলেন প্রথম

রাজশাহী মেডিকেল কলেজে (ডেন্টাল ইউনিট) চান্স পেয়েও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আইন বিভাগে ভর্তি হওয়া শাহরিমা তানজিনা অর্নি একাডেমিক ফলাফলেও সবার সেরা। সোমবার (৮ নভেম্বর) ঢাবির আইন বিভাগে স্নাতকের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে তিনি ওই বিভাগ থেকে ফার্স্ট ক্লাস ফার্স্ট পেয়ে স্নাতক উত্তীর্ণ হয়েছেন। জানা গেছে, ঢাবিতে ভর্তি হয়ে অর্নি

শুধুমাত্র পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন না। ছাত্র রাজনীতিতেও বেশ সক্রিয় ছিলেন তিনি। নিয়মিত যাতায়াত ছিল বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনেও। ডাকসুর সদ্য সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন অর্ণি। এছাড়াও তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের উপ-আন্তর্জাতিক সম্পাদকের দায়িত্বেও রয়েছেন। সোমবার (৮ নভেম্বর) ঢাবির আইন বিভাগের

ফল প্রকাশের পর ফেসবুকের এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এই অর্জনের খবর নিজেই জানিয়েছেন শাহরিমা তানজিনা অর্নি। নিচে তার সেই স্ট্যটাসটি হুবহু তুলে ধরা হল— ‘মানুষের খুব কাছে থেকে কাজ করার ইচ্ছা থেকেই সব সময় ডাক্তার হতে চাইতাম। ২০১৫ সালের শেষের দিকে যেদিন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল ইউনিটে ভর্তি হয়ে যখন ঢাকা ফিরছিলাম, সারা রাত

শুধু মাথায় একটা বিষয় কাজ করে। ‘can we really have a plan for everything?’-এই প্রশ্নের উত্তর পেতে ব্যার্থ হয়েই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ঘ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম। উত্তর পেলাম রেসাল্টের পর। আমি সৃষ্টিকর্তায় বিশ্বাস করি, আর ভীষণ ভাবে বিশ্বাস করি, He always has a plan! তাই অনেক অনেক ভেবে বেছে নেওয়া পথকে পরিবর্তন করে

রাতারাতি সিদ্ধান্ত নিলাম আইন পড়বো। জীবনে খুব তীব্র ভাবে আমি কখনো কিছু চাইনি। শুধু যা পেয়েছি, তা আঁকড়ে ধরেছি খুব শক্ত করে৷ এই পথে যে দীর্ঘ যাত্রা আমি শুরু করেছি, তার প্রথম ধাপ আজ শেষ করলাম৷ সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমত আর সকলের দোয়া ও শুভাশিস নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগ থেকে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হয়ে অনার্স জীবনের ইতি

টানলাম। আমার এই অর্জনের সবটুকুর পাওনাদার আমার পরিবার, যারা আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তটা আমাকে আমার মতন নিতে দিয়েছে। ব্যাক্তিগতভাবে আমার অনার্স জীবনের প্রাপ্তি আমার সহপাঠীরা। প্রত্যেকটা মানুষের জীবনের গল্প আলাদা হতে পারে, but somewhere in the line, we coincide. বেঁচে থাকার লড়াই আর টিকে থাকার

আপ্রাণ চেষ্টার যে সৌন্দর্য্য আর মহিমা তাদের সবার জীবনকে কাছে দূরে যেভাবেই হোক দেখে শিখেছি। আর স্বল্প হলেও দীর্ঘ এই পথটা একা পাড়ি দেওয়ার মানুষ আমি নই। আমার এই জার্নির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত, বিভিন্ন ধাপে যারা আমার হাত আকড়ে ছিলেন, তাদের ঋণ ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য আমার জীবনটা খুবই তুচ্ছ। জীবন উজাড় করে দেওয়া ভালবাসা ছাড়া মানুষ হিসেবে

আমার ফিরিয়ে দেওয়ার কিছু নাই৷ Today I can humbly say to my five years back younger self that it’s okay not to have a plan. It’s okay not to fit in a box that others throw at you. It’s okay to wonder, to wander, to be lost and to discover yourself everyday. It’s okay to be you!’ তথ্যসুত্রঃ ডেইলি ক্যাম্পাস

About admin

Check Also

সংসার সামলেও এএসপি হয়ে ওঠেন জান্নাত!

ছোট বেলা থেকেই তিনি স্বপ্ন দেখতেন এমন কিছু করার যা দিয়ে মানুষের সেবা দেয়া যায়। ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Alert: Content is protected !!