Breaking News

১৩ বছর ধরে এই হিজরার স’ঙ্গে সাংসারিক জীবন আশিক অব্বাসের !

তাদের এই সম্পর্ককে আজ কুর্নিশ জানাচ্ছে নেটিজেনরা। আপন হলেন একটি এলাকার হিজড়াদের নেতা। তার সঙ্গে ব্যবসায়ী আশিক অব্বাসের প্রে’মের স’ম্পর্ক প্রায় ১৩ বছর ধরে।

আপন জানান, ‘আমাদের তৃতীয় লি’ঙ্গের মানুষ যেটা পায় না, সেটা আমি ওর কাছ থেকে পেয়েছি এবং তার বিনিময়ে যে কোনও স্বার্থ থাকতে পারে, তাও আমি আজ পর্যন্ত দেখিনি।’আশিক ও আপন দুজনের প্রথম দেখা পথের ধারে। প্রথম থেকেই আপনের প্রতি দুর্বলতা তৈরি হয় ব্যবসায়ী আশিকের। সেই অভিজ্ঞতা তুলে ধরে আশিক জানান, ‘আমি দেখলাম দু’জন মানুষ আসছে।

দুজন মানুষ বলতে তারা, আমি দুর থেকে বুঝতে পারলাম যে, এরকম হিজড়া যে বলে যাদেরকে, এরকম কেউ আসছে। কোনও নারীও না কোনও পুরুষও না, এরকমটা মনে হলো দূর থেকে আরকি।’ তিনি আরও জানান, ‘সামনে আসার পর আমি কেন জানি, আমার হাতে থাকা খাবার ওকে দিলাম, আর সেটা আমার কাছ থেকে নিয়ে খেলো, আমি নিজেও কিছু সময়ের জন্য হতভম্ব হয়ে গেলেও আমা’র কাছে জিনিসটা ফিলিংসই মনে হলো।

খুব ভালো লাগলো। আমা’র অন্তরে জানি কেমন লাগলো।’এরপর বন্ধুত্ব থেকে প্রে’ম। শুরুর দিকে ওই স’ম্পর্ক নিয়ে দোটানা ছিল দু’জনের মধ্যেই।‘এদের স’ম্পর্কে তো আমা’র কোনো ধরণের অ’ভিজ্ঞতা ছিল না। তো হিজড়ারা কেমন হয়, সে বিষয়ে আতঙ্ক ছিল আমা’র মধ্যে।’ কিন্তু… এই কথাগুলো বলছিলেন আশিক।এসময় আপন বলে উঠেন, ‘ভিতর ভিতর ভ’য় পাচ্ছিলাম আমিও। যে এত সুন্দর হিজড়া থাকতে, আমি তো দেখতে এতটা ভালো ছিলাম না।

তো আমি তো, এত সুন্দর একটা ছে’লে, ওর শিক্ষাগত যোগ্যতা ভালো, ও ভালো একটা ফ্যামিলির ছে’লে, তো ও কেন আমা’র পিছনে।’পরে আশিক আব্বাসের পরিবারের সদস্যদের সাথে আপনের পরিচয় হয়। এরপর পারিবারিকভাবে বিয়ের অনুষ্ঠানও করেন তারা। এর কিছুদিন পর…. আইনিভাবেও তাদের বিয়ের অনুষ্ঠান হয়।

কয়েকজন হিজড়ার সঙ্গে পরিবারের সদস্যের মতো বসবাস করেন আশিক আর আপন। আপনের চাওয়া, আশিক যেন ভবিষ্যতে আবার বিয়ে করেন।আপন বলেন, ‘আমা’র ধীরে ধীরে বয়স হচ্ছে। ওরও (স্বামী আশিক) বয়স হচ্ছে। ও আরেকটু স্বাবলম্বী হলে আমি ওকে বিয়ে করাবো, এটা আমা’র স্বপ্ন। আমি ওর কোলে একটা ফুটফুটে সন্তান দেখতে চাই।

এটা আমা’র স্বপ্ন।’ তবে আশিকের সকল চাওয়া পাওয়া তার জীবনসঙ্গী আপনকে ঘিরেই।আশিক জানান, ‘আম’রা একটা বাচ্চা এরই মধ্যে পালক (দত্তক) নিয়েছি। তারপরেও আমা’র যদি ওই রকম প্রয়োজন হয়, (পদ্ধতি ব্যবহার করে) ওরও বাচ্চা ধারণ করা সম্ভব।’সবশেষ আপন জানান, ‘এভাবে আমাদের জীবনটা শুরু হলো, এখনও আছে। ওপরওয়ালার কাছে প্রার্থনা, যদি কোনও বাধাবিঘ্নতা না আসে, সারাটা জীবন একসাথেই থাকতে চাই।’ সূত্র: বিবিসি

About admin

Check Also

একুলও গেল ওকূলও গেলো হেফাজতের!

সম্প্রতিক সময়ে হেফাজতের আম-ছালা দুটোই গেছে এমনটি মনে করছেন হেফাজতের সাথে সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, একদিকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *